আন্তর্জাতিক

২৯ বছর পর যমজের মিলন

যমজ ভাই বা বোন একসঙ্গে চলবেন আর পরিচিত সবাই দ্বিধায় পড়বেন। ভাববেন কার নাম যেন কি! এটাই সচরাচর ঘটে। কিন্তু বিপরীত ঘটলো ইন্দোনেশিয়া বংশোদ্ভূত যমজ বোনের ক্ষেত্রে। চেহারায় নেই কোন মিল। একজনের সঙ্গে পরিচয় নেই অন্যজনের। অথচ মাত্র ৪০ কিলোমিটারের মধ্যে তাদের বসবাস। এই ঘটনা ঘটেছে সুইডেনে। ইন্দোনেশীয় বংশোদ্ভূত যমজ বোন এমিলি ফল্ক ও লিন ব্যাকম্যান। প্রায় ৩০ বছর আগে দু’টি ভিন্ন সুইডিশ পরিবার এদেরকে দত্তক নেয় উত্তর ইন্দোনেশিয়ার একটি এতিমখানা থেকে। তখন এরা যমজ এমন কোন তথ্য তাদেরকে দেয়নি কর্তৃপক্ষ। ভিন্ন ভিন্ন সময়ে তাদেরকে নেন তাদের দত্তক বাবা-মা। তবে ব্যাকম্যানের দত্তক বাবা-মা এতিমখানা ছাড়ার সময় তাদের ড্রাইভার বলেছিল, এরা যমজ। তখন তার বাবা-মা তাদের ইন্দোনেশীয় নাম লিখে রেখেছিলেন, ওই নামের সূত্র ধরেই ফেসবুকের মাধ্যমে ফল্ককে খুঁজে বের করে ব্যাকম্যানের বাবা-মা। তারা সত্যিকারের যমজ কিনা এটা বোঝার জন্য উভয় পরিবার অনেকবার এক সঙ্গে বসেছে। তাদের ছোট সময়ের ছবি মিলিয়েছে। চেহারায় মিল না থাকায় শেষ পর্যন্ত ডিএনএ টেস্ট করে নিশ্চিত হয়েছে যে, এরা যমজ বোন। ডিএনএ টেস্টে ৯৯.৯৮ ভাগ প্রমাণ মেলে এদের যমজ হওয়ার বিষয়ে। ফল্ক বলেন, আমাদের মধ্যে অনেক মিল রয়েছে। কাগজে অনেক কিছুই লেখা হয়নি। তাই ডিএনএ ছাড়াই আমাদের যমজ হওয়াটা বোঝা যায়। ২৯ বছর পর গত বছর একসঙ্গে মিলিত হয়

Advertisements

About EUROBDNEWS.COM

Popular Online Newspaper

Discussion

Comments are closed.

%d bloggers like this: