অন্যান্য খবর

শোকের দিন, গর্বেরও

ঢাকা, ফেব্রুয়ারি ২১ – মাতৃভাষার মান রক্ষায় ১৯৫২ সালের এই দিনে যারা আত্মদান করেছেন, শ্রদ্ধাবনত চিত্তে তাদের স্মরণ করেছে জাতি।

রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে বাঙালির এই আত্মত্যাগের দিনটি এখন আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালন করা হচ্ছে সারাবিশ্বে। এই দিবস সব ভাষাভাষীর অধিকার রক্ষার দিন।

সোমবার মধ্যরাতে ঘড়ির কাঁটা ১২টা ছোঁয়ার আগেই বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতা-কর্মীদের সারি দেখা যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে, সবাই ফুল নিয়ে অপেক্ষায় ভাষাশহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে।

১২টা ১ মিনিটে শহীদ মিনারে প্রথমে ফুল দেন রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান। কয়েক মিনিট পর ফুল দিয়ে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরে মন্ত্রিপরিষদের সদস্যদের সঙ্গে নিয়ে সরকারের পক্ষ থেকে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন তিনি।

জাতীয় সংসদের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ করেন সংসদের ডেপুটি স্পিকার শওকত আলী।

এরপর বিরোধীদলীয় নেতা খালেদা জিয়া শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন ১২টা ২১ মিনিটে। এর পরপর তিনি বিএনপির পক্ষ থেকেও শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করেন।

এরপর একে একে শ্রদ্ধা জানান তিন বাহিনীর প্রধান, অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম, বিভিন্ন দেশের কূটনীতিক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। তাদের শ্রদ্ধা জানানোর পর শুরু হয় রাজনৈতিক দলগুলোসহ সর্বসাধারণের শ্রদ্ধা নিবেদন।

গালে শহীদ মিনারের আল্পনা, বুকে কালো ব্যাজ, হাতে পতাকা, নানা স্লোগানে ভরা ফিতা মাথায় বেঁধে নানা বয়সী মানুষের ঢল নামে সকালে। এক পর্যায়ে ফুল হাতে অপেক্ষমানদের মানুষের সারি জগন্নাথ হল-পলাশী সীমা ছাড়িয়ে নীলক্ষেত পর্যন্ত বিস্তৃতি পায়। সবার কণ্ঠে অমর সেই গান ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি…’।

১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের মিছিলে পাকিস্তানি শাসক গোষ্ঠীর নির্দেশে পুলিশের গুলিতে প্রাণ হারান সালাম, রফিক, বরকত, শফিউরসহ নাম না জানা অনেকে।

এরপর বাংলাকে অন্যতম রাষ্ট্রভাষার স্বীকৃতি দেয় তৎকালীন পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠী। ভাষা আন্দোলনের ধারাবাহিকতায়ই ১৯৭১ সালে সশস্ত্র সংগ্রামের মধ্য দিয়ে আসে বাংলাদেশের স্বাধীনতা। ১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর ইউনেস্কোর এক ঘোষণায় ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসাবে স্বীকৃতি পায়।

ঢাকার পাশাপাশি বিভিন্ন জেলায় শহীদ মিনারেও একুশের প্রথম প্রহর থেকে ফুল দেওয়ার পালা শুরু হয়। শহীদ মিনারে ফুল দেওয়া ছাড়াও বিভিন্ন সংগঠন আলোচনা সভাসহ নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে শোক এবং সেই সঙ্গে অধিকার অর্জনের এই দিনটি স্মরণ করেছে।

সকালে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেন। প্রধান বিচারপতির পর বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিস কমিশনের পক্ষ থেকেও ফুল দেওয়া হয়।

বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিল কর্পোরেশন, কর্মজীবী নারী, রক্তদাতাদের সংগঠন ‘বাঁধন’, বাংলাদেশ খ্রিস্টান অ্যাসোসিয়েশন, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ, ছায়ানট, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমী, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা আইনজীবী সমিতি, ঢাকা মেট্রোপলিটন বার কাউন্সিল, মানবাধিকার সংগঠন শেল্টার, গণসংস্কৃতি কেন্দ্র, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আধুনিক ভাষা ইনস্টিটিউট, ছাত্রলীগ, ছাত্রদল, ছাত্র ইউনিয়ন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট, ছাত্র ফেডারেশন, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি, ওয়ার্কার্স পার্টি, বাসদ, গণসংহতি আন্দোলন, বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদ, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ, বাংলাদেশ পরিবেশ বঁাঁচাও আন্দোলন, বাংলাদেশ ফ্রিল্যান্স ফটোগ্রাফার অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ মহিলা আইনজীবী পরিষদ, বাংলাদেশ ডিপ্লোমা ফার্মাসিস্ট অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি, বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়, বিবর্তন সাংস্কৃতি কেন্দ্র, শহীদ জননী জাহানারা ইমাম স্মৃতি পাঠাগার, কামরাঙ্গীরচরের ভাষা আন্দোলন স্কুলসহ বিভিন্ন সংগঠন ও প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি পরিবার পরিজন নিয়ে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানায় সর্বস্তরের মানুষ। দুপুর নাগাদ ফুলে ফুলে ছেয়ে যায় শহীদ বেদী।

লালবাগের গৃহবধূ রুমা আজাদ শহীদ মিনারে এসেছিলেন তার নার্সারি পড়–য়া ছেলে তৌফিকুল ইসলাম সিয়ামকে নিয়ে। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আমাদের ঐহিহ্যবাহী একুশের এই অনুষ্ঠান বাচ্চাকে দেখাতেই বের হয়েছি। এসব দেখে সে আত্মপরিচয়ের সন্ধান পাবে।”

শহীদ মিনার থেকে বইমেলা ঘুরে বাসায় ফিরবেন বলে জানান রুমা।

ছোট্ট সিয়াম বলে, “সকালে স্কুলে গিয়ে ফুল দিয়েছি। এখন এখানে এসে ফুল দিলাম। খুব ভালো লাগছে।”

শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন নির্বিঘœ করতে র‌্যাব পুলিশের পাশাপাশি বিএনসিসি ও রোভার স্কাউটের বিপুল সংখ্যক সদস্য কাজ করছেন পুরো এলাকাজুড়ে। একুশের প্রথম প্রহর থেকেই তাদের তৎপর থাকতে দেখা যায়।

এবার সকালে ভিড় অন্য বছরের তুলনায় বেশি ছিল উল্লেখ করে ঢাকাস্থ বেগমগঞ্জ সোনাইমুড়ি ছাত্র-ছাত্রী কল্যাণ সমিতির সভাপতি রোমানা আক্তার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “সকাল ৭টায় আমরা এসএম হলের সামনে লাইনে দাঁড়িয়েছিলাম। ফুল দিতে দিতে ১টা বেজে গেছে।

২১ ফেব্রুয়ারি সাধারণ ছুটির দিন। ভাষা শহীদদের স্মরণে এদিন জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয়।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে অনুষ্ঠান হয়। জাতিসংঘের বাংলাদেশ মিশনেও অনুষ্ঠান হয়েছে।

Advertisements

About EUROBDNEWS.COM

Popular Online Newspaper

Discussion

Comments are closed.

%d bloggers like this: