খেলা

ক্রিকেটারদের সুখ-দুঃখের রাত

ঢাকা: খবরটা শোনার পর তামিম ইকবালের বিশ্বাসই হচ্ছিলো না! এক বন্ধুকে ফোনে খোঁজ নিতে বলেন। খোঁজখবর করে বন্ধুটি তাকে যা সত্য, তাই জানান,‘তোকে বাদ দেওয়া হয়েছে’।

তামিমের মানসিক অবস্থা অনুমান করে ফোন করারও ইচ্ছে দমে যায়। তামিমের নিশ্চয়ই মন খারাপ করেছে। কিন্তু তা তো হওয়ার কথা নয়। বিপিএলের সেমিফাইনাল খেলা শেষে সংবাদ সম্মেলনে মুশফিকুর রহিম-ই তো অপ্রিয় সত্য কথা বলেছিলেন,‘বাংলাদেশে সব সম্ভব’। ওই মন্তব্যকে অপরাধ গণ্য করেছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) কর্মকর্তারা। অধিনায়ককে শাস্তি দিবেন বলে সবাই একাট্টাও হয়েছেন। মুশফিকের বোধহয় অধিনাকত্বই থাকছে না। অধিনায়ক এবং সহ-অধিনায়কের বিষয়টি উহ্য রেখে এশিয়া কাপের দল ঘোষণা করেছে বিসিবি।

এশিয়া কাপের দলে বিবেচনা করা হয়নি শাহরিয়ার নাফীস, ফরহাদ রেজা, নাঈম ইসলাম, সোহরাওয়ার্দী শুভকেও। তাদেরও নিশ্চয়ই মন খারাপ। হ্যাঁ খারাপ তো বটে-ই। যদিও মুখে শাহরিয়ার বললেন,‘অতটা খারাপ লাগছে না। মনে হচ্ছিলো অনেক ওলটপালট হতে পারে। আমার এখন প্রমাণের কিছু নাই। ভালো খেললেই দলে ঢোকা সম্ভব। আমাকে সেই চেষ্টাটাই করতে হবে।’

এশিয়া কাপের দলে সুযোগ পেয়ে অনেকে আবার খুশিতে আত্মহারা। এই যেমন প্রথমবারের মতো জাতীয় দলে সুযোগ পেয়েছেন বিকেএসপির ছাত্র এনামুল হক বিজয়। তার পরিবারের সদস্যদের চোখ আনন্দাশ্রু,‘আমার খুবই ভালো লাগছে। ভাবতেও পারিনি এশিয়া কাপেই চান্স পাবো। আমার বাবা-মা তো খুশিতে কান্না করছেন। দোয়া করবেন যেন দলে নিয়মিত হতে পারি।’

প্রায় তিনবছর পর ওয়ানডে দলে ফিরেছেন চট্টগ্রামের ছেলে নাজিমউদ্দিন চৌধুরী। তার কথাতেও উচ্ছ্বাস,‘আমি আশা করেছিলাম সুযোগটা আসবে। এখন কাজে লাগাতে চেষ্টা করবো। আগেও সুযোগ পেয়ে কাজে লাগাতে পারিনি, এবার চেষ্টা করবো ভালো খেলে দলে জায়গা ধরে রাখতে। এশিয়াকাপের দলে আছি খবরটা শোনার পর পরিবারের সবাই আমাকে অভিনন্দন জানিয়েছে। আমি তাদের ভালো বাসার সম্মান রাখতে চাই।’

জাতীয় দলে ফেরা আরেক ক্রিকেটার উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান জহুরুল ইসলাম অমি, ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে দারুণ খেলছিলেন। দুটি শতক আছে, বেশ কয়টি অর্ধশতকও হাঁকিয়েছেন ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিংয়ের হয়ে। তার সম্মানটা পেলেন এশিয়া কাপের দলে নিশ্চিত হয়ে,‘আমি কয়েকদিন ধরেই শুনছিলাম আমাকে এশিয়া কাপে নেওয়া হতে পারে। নির্বাচকরা আমার ওপর আস্থা রেখেছেন, সেজন্য ধন্যবাদ। খেলার সুযোগ পেলে চেষ্টা থাকবে পারফর্ম করা, যাতে দলে নিয়মিত হতে পারি।’

চোট যাকে বারবার জাতীয় দল থেকে বের করে দিয়েছে, সেই মাশরাফি বিন মুর্তজার প্রত্যাবর্তনে বোধহয় বেশি খুশি হয়েছেন দর্শকরা। মাশরাফিও তৃপ্তির হাসি হাসছেন,‘বিপিএলে আমার লক্ষ্য ছিলো ফিটনেস ফিরে পাওয়া। সেটা করতে পেরেছি বলেই জাতীয় দলে নিয়েছে। এখন আরও বড় দায়িত্ব আমার সামনে। এখানে বেশি ওভার বল করতে হবে। এশিয়া কাপ অনেক বড় আসর। ভালো খেলতে পারলে সব ঠিক আছে। মোট কথা আমাকে ভালো খেলতে হবে। আমি জাতীয় দলের হয়ে খেলতেই বেশি পছন্দ করি।’

Advertisements

About EUROBDNEWS.COM

Popular Online Newspaper

Discussion

Comments are closed.

%d bloggers like this: